মাই কম্পিউটার (My Computer In Bengali Language)

My Computer In Bengali Language

{tocify} $title={Table of Contents}

উইন্ডোজ ডেস্কটপে My computer আইকন ফাইল। ম্যানেজমেন্টের অন্যতম প্রধান হাতিয়ার বিশেষ My computer Windows এ প্রবেশ করতে হলে একবার কেবল My computer আইকনের ওপর double click করতে হবে। স্ক্রীনের যে কোন আইকনে ডবল ক্লিক করে তার ভিতরের ফাইল ও ফোল্ডারের তথ্য জানতে পারা যাবে।

উইন্ডোজ এক্সপ্লোরার পরিক্রমা

 উইন্ডোজ এক্সপ্লোরার-এর মধ্যে প্রবেশ করার পর সমস্ত ড্রাইভ, ফোল্ডার ও ফাইলের বিবরণ পাওয়া যাবে।

উইন্ডোজ এক্সপ্লোরার স্ক্রিনের অপারেশন টেকনিক

অন্য কোন নেটওয়ার্কে যুক্ত কমপিউটার অথবা ডিসক অথবা ফোল্ডারের গঠনতন্ত্র দেখতে হলে বাম দিকের প্যানে নির্দিষ্ট আইকনে ক্লিক করলে ডানদিকের প্যানে ফোল্ডারের গঠন বিস্তৃতভাবে দেখা যাবে।

অবজেক্ট সিলেক্ট করা

অবজেক্টের আইকনকে দেখে বোঝা যাবে সেটা সিলেক্ট হয়েছে কিনা। সিলেক্ট থাকা অবস্থায় আইকনের রং বদলে যায়। ছবির সঙ্গে নামটি রিভার্স দেখাবে। অর্থাৎ গাঢ় ব্যাকগ্রাউন্ডের ওপর সাদা লেখা দেখা যাবে। কোন একটি অবজেক্টের ওপর রাইট ক্লিক করেও সিলেক্ট করা যায় এবং এর ফলে উপরি পাওনা হল সিলেক্টেড অবজেক্টের ওপর একটি পপমেনু সঙ্গে সঙ্গেই দেখা যাবে এবং তাতে দেওয়া থাকবে সেই অবজেক্টটিকে দিয়ে কি কি কাজ করা যাবে।

ফোল্ডার কে এক্সপ্লোর করা

এক্সপ্লোরার উইন্ডোর বাম দিকের প্যানে যে কোন ফোল্ডারে ডবল ক্লিক করুন। ফোল্ডারটি বামদিকের প্যানে তার বংশানুক্রম অনুসারে স্ক্রীনে মেলে ধরবে এবং ডান দিকের প্যানে ওপেন করা ফোল্ডারের বিষয়বস্তুর বিবরণ দেখা যাবে।

এক্সপ্লোরারকে সর্টকার্ট করে পাওয়া 

উইন্ডোজের স্টার্ট মেনুতে এক্সপ্লোরারকে পেতে হলে উইন্ডোজের C ড্রাইভে Explorer.Exe নামক ফাইলটিকে ড্রাগ অ্যান্ড ড্রপ করতে হবে। যে কেবল স্ক্রীনে থেকে কী বোর্ডে Ctrl + Alt + E টিপলেই Elplorer উইন্ডোজ দেখা দেবে। স্ক্রীনে দুটি এক্সপ্লোরার উইন্ডোজ একাধিক উইন্ডোজ খুলতে হলে টাস্কবারে একবার রাইট ক্লিক করুন এবং তারপর The Horizontally অথবা Tile vertically অপশনের যে কোন একটি সিলেক্ট করতে হবে।

এক্সপ্লোরার টুলসবার   

এর মধ্যে কয়েকটি সর্বদা প্রয়োজনীয় কাজের কমান্ড, বাটন রাখা আছে। ঐ টুলবক্সে যে কোন টুলের ওপর মাউসের বাটন রাখা মাত্রই টুলটি দেখিয়ে জানিয়ে দেবে ওটার কি কাজ।

ভিউ মেনু

এক্সপ্লোরার টুলবার ব্যবহারের সময় একসপ্লোরার বার পেতে হলে কমান্ড দিতে হবে যথাক্রমে view > Explorer Bar, এক্সপ্লোরার ভিউ দেখলে উইন্ডোর ডানদিকে প্যানে সর্বদাই বামদিকের কোন একটি ফোল্ডারের বিবরণ দেখাবে এবং বামদিকে প্যানে সিলেক্ট করা ফোল্ডারটিকে রিভার্স করে জানিয়ে দেয় যে ঐ ফোল্ডারেরই বিস্তৃত বিবরণ ডান দিকে দেখা হয়েছে।

Minimise, Maximize, Close

 ডানদিকে এই তিনটি বাটন রয়েছে। মিনিমাইজে ক্লিক করলে প্রোগ্রামটি লুকিয়ে যায়। ম্যাক্সিমাইজে ক্লিক করলে গোটা স্ক্রীন জুড়ে দেখাবে। ক্লোজ বাটন ক্লিক করলে প্রেগ্রামটিকে স্ক্রীনে প্রদর্শন বন্ধ করে।

নতুন ফোল্ডার সৃষ্টি 

 সরাসরি ডেসকটপের ওপরেই ফোল্ডার বানানো যায়। এর জন্য ডেস্কটপের কোন ফাকা স্থানে পয়েন্টার রেখে রাইট ক্লিক করতে হবে এবং তারপর কমান্ড দিতে হবে যথাক্রমে New > folder স্ক্রীনের মধ্যে একটি আইকন দেখা যাবে যার মধ্যে New folder শব্দটিও লেখা আছে। এই ফোল্ডারটি হার্ডড্রাইভের উইন্ডোজ ফোল্ডারের মধ্যে ডেস্কটপ ফোল্ডার থাকল।

একটি ফোল্ডারের মধ্যে অন্য ফোল্ডার সৃষ্টি 

ফোল্ডারগুলিকে একটি টাইপ অনুসারে কোন একটি ফোল্ডারে রাখা হয়। বেশির ভাগ উইন্ডোজ অ্যাপ্লিকেশনে (word, Excel) store as ডায়লগ বক্সের মাধ্যমে নতুন ফোল্ডার তৈরির সুযোগ আছে। একটি ডায়লগ বক্সের মাধ্যনে ফোল্ডারের নাম জানাতে হবে এখানে type করে ফোল্ডার নাম রেখে Ok বটনে ক্লিক করতে হবে। যখনই নতুন ফোল্ডার তৈরি করা হবে তখন উইন্ডোজ 10 নিজেই সেটার New folder নাম রাখবে। আবার একটি ফোল্ডার তৈরি করলে New folder 2 নাম রাখতে হবে। তাই ফোল্ডারের Re-name করতে হবে।

ফোল্ডার প্রপারটি দেখা

ফোল্ডারের নিজস্ব ধর্ম আছে। Property sheet খুললে ফোল্ডারের বিবরণ ও চরিত্র সম্বন্ধে জানা যায়। ঐ নির্দিষ্ট ফোল্ডারের ওপর কেবল একবার রাইট ক্লিক করে মেনু থেকে Properties, কমান্ড সিলেক্ট করতে হবে। Read only বটনটি সিলেক্ট করে রাখলে ফাইলগুলি পরিবর্তন করা (লেখা) যাবে না। Active button-এর সাহায্যে ফোল্ডারকে active রাখা যাবে। Hidden বাটনের মাধ্যমে ফোল্ডারকে লুকিয়ে রাখা যাবে। System বাটনের মাধ্যমে systems file গুলিকে পৃথকভাবে চিহ্নিত করা যাবে। ফাইল ম্যানেজমেন্ট বলতে বোঝায় ফাইলকে Copy করা। move করা delete করা। Rename করা ইত্যাদি। কোন ফোল্ডার বা ফাইলকে কপি অথবা মুভ করার প্রধান পদ্ধতি হল কাট/কপি এবং পেস্ট পদ্ধতি। এই পদ্ধতিতে কাজ করার সময় মুভ করার কমান্ড cut এবং কপি করার কমান্ড copy করলে ফাইল অথবা ফোল্ডার অস্থায়ী স্মৃতি আধার ক্লিপ বোর্ডে সংরক্ষিত হয়। তারপর paste কমান্ড দিলেই ক্লিপ বোর্ড থেকে যথাস্থানে লেখা হয়ে যায়।

ক্লিপ বোর্ড দেখা 

এটি সিস্টেমের একটি অস্থায়ী স্মৃতি আধারের অংশ। ফাইল অথবা ফোল্ডারকে কপি/কাট করলে প্রথমে সেটা ক্লিপ বোর্ডে কপি করে রাখা থাকে। তারপর সেখান থেকে পেস্ট করা হয় যথাস্থানে।

ফাইল অথবা ফোল্ডার মুছে ফেলা 

মাউসের রাইট বাটন দিয়ে নিদিষ্ট ফাইল অথবা ফোল্ডারটিকে ক্লিক করতে হবে। তার পর যে পপআপ মেনু দেখা দেবে তার মধ্যে delete কমান্ড সিলেক্ট করতে হবে।

UND0 কমান্ডের প্রয়োগ

 উইন্ডোজ 10 এর মধ্যে UNDO কমান্ড ব্যবস্থা দেওয়া হয়েছে। কোন একটি কাজকে UNDO করতে হলে উইন্ডোজ টুলবারে UNDO বাটনে ক্লিক করলেই কাজ হবে। তবে Print কমান্ড UNDO করা যায় না

নবীনতর পূর্বতন