4G ও 5G এর মধ্যে পার্থক্য এবং সুবিধা অসুবিধা

আমরা টেকনোলজি বিশ্বে বাস করছি এবং প্রতিটি টেকনোলজি সময়ের সাথে সাথে আপগ্রেড হচ্ছে। একইভাবে, নেটওয়ার্কিং এবং টেলিকম সেক্টরে আমরা 2G, 3G, 3.5G, 4G এবং 5G এর মতো বিভিন্ন জেনেরেশন্স দেখেছি।যাইহোক প্রতিটি আপগ্রেড জেনেরেশন্স পূর্ববর্তী জেনেরেশন্স তুলনায় এর অনেক সুবিধা রয়েছে।যখন আমরা 5G এবং 4G এর মধ্যে পার্থক্য নিয়ে আলোচনা করি তখন আমরা সাধারণত কানেক্টিভিটি এবং স্পিড প্যারামিটার সম্পর্কে বিশেষভাবে কথা বলি।কানেক্টিভিটি হল একটি স্ট্যান্ডার্ড পারমিটর যা যেকোনো জেনেরেশন্স স্ট্রেংথ,কোয়ালিটি এবং ভ্যালু মূল্যায়ন করে।আরও কিছু অন্যান্য পারমিটর যেমন স্পিড,ডিসটেন্স এবং পপুলেশন ডেন্সিটি ইত্যাদি।

{tocify} $title={Table of Contents}

4G ও 5G এর মধ্যে পার্থক্য এবং সুবিধা অসুবিধা

5G হল লেটেস্ট টেকনোলজি যা বাজারে তার হাই স্পিড এবং রেলিয়াবিলিটি সাথে বিকশিত হচ্ছে যেখানে 4G পূর্ববর্তী জেনেরেশন্স তুলনায় এর বিভিন্ন সুবিধার কারণে বিশ্বজুড়ে প্রচুর গ্রাহকরা ব্যবহার করে।অনেক সার্ভিস প্রোভাইডার আছে যারা 5G সার্ভিস প্রদান করে কিন্তু খুব ছোট কনসিউমার মার্কেটসের জন্য।অনেক সার্ভিস প্রোভাইডার তাদের পুরানো সংস্করণগুলিকে 5G-তে ইম্প্লিমেন্টিং করছে।এই বিষয়ে আমরা 5G এবং 4G-এর মধ্যে বিভিন্ন পার্থক্য এবং 4G-এর থেকে 5G-কে উন্নত করার প্যারামিটার গুলি নিয়ে আলোচনা করব।

4G কি?

4G হল চতুর্থ-প্রজন্মের মোবাইল নেটওয়ার্ক টেকনোলজি যা 3G-এর তুলনায় অনেক ফাস্ট।এটি পূর্ববর্তী দুটি টেকনোলজির  বৈশিষ্ট্যগুলি ফলো করে যেমন 2G এবং 3G৷3G যে বৈশিষ্ট্যগুলি প্রদান করে তার উপর ভিত্তি করে কিন্তু অনেক দ্রুত গতিতে 4G কাজ করে।কখনও কখনও 4G 4G LTE নামেও পরিচিত কিন্তু এটি টেকনিক্যালি ভাবে ভুল কারণ LTE হল 4G-এর একক প্রকার৷এটি একটি উন্নত টেকনোলজি এবং বেশিরভাগ মোবাইল নেটওয়ার্ক পরিষেবা প্রদানকারী দ্বারা গৃহীত৷4G নেটওয়ার্ক ব্যবহারকারীদের নিশ্চিত করে যে তারা যে কোনো কাজ যেকোন পরিমাণ ডেটা দিয়ে করতে চায় এবং তারা প্রায় সব জায়গায় স্থিতিশীল গতি বজায় রাখতে পারে।4G ওয়্যারলেস নেটওয়ার্ক সম্পূর্ণরূপে একটি ডেটা কানেকশন যা একটি এন্ড-টু-এন্ড প্রোটোকল কানেকশন ব্যাবহার করে।

4G এর সুবিধা

  • 4G নেটওয়ার্ক ফ্লেক্সিবিলিটি এবং মবিলিটি প্রদান করে।
  • এটি অন্যান্য ডেটা পরিষেবার চেয়ে বেশি নির্ভরযোগ্য।
  • 4G নেটওয়ার্কের সাথে ডাউনলোডিং এবং আপলোডিং গতি তারযুক্ত বা 2G এবং 3G নেটওয়ার্কের তুলনায় অনেক দ্রুত হতে পারে এমনকি গ্রামীণ এলাকায়ও।
  • এটি আমাদের মোবাইল ফোনের মতো একই মোবাইল ইন্টারনেট কানেকশনের সাথে কাজ করে এবং তাই 4G কানেকশন নিতে কন ফোন লাইনের প্রয়োজন নেই৷
  • 4G নেটওয়ার্কগুলি ওভারল্যাপিং নেটওয়ার্ক রেঞ্জ সহ 30 মাইলেরও বেশি এলাকা কভারেজ প্রদান করে এবং এটি সর্বদা সম্পূর্ণ কানেকশন নিশ্চিত করে।
  • এটি সম্পূর্ণ সিকিউরিটি,প্রাইভেসী প্রদান করে। 4G ব্যবহার করে যে ব্যবহারকারীরা তাদের মোবাইল ডিভাইসে সেনসিটিভ ইনফরমেশন ধারণ করে তারা নিরাপদে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারে।

4G এর অসুবিধা

  • পুরানো ডিভাইসে 4G নেটওয়ার্ক সমর্থন করে না তাই 4G নেটওয়ার্ক ব্যবহার করার জন্য গ্রাহকে নতুন ডিভাইস কিনতে বাধ্য হয়।
  • 4G টেকনোলজি বিভিন্ন অ্যান্টেনা এবং ট্রান্সমিটার ব্যবহার করে এবং ব্যবহারকারীরা এই নেটওয়ার্ক ব্যবহার করার সময় মোবাইল ফোনের ব্যাটারি লাইফ খারাপ অনুভব করবে। সুতরাং দীর্ঘ সময়ের জন্য ইন্টারনেট ব্যবহার করার জন্য আমাদের আরও বেশি ব্যাটারি পাওয়ার প্রয়োজন।
  • 4G-তে অবৈধভাবে ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে তথ্য পাওয়া সহজ।
  • এটি জ্যামিং ফ্রিকোয়েন্সি দিয়ে আক্রমণ করা হতে পারে; তাই প্রাইভেসী ব্র্যাক সম্ভাবনা বেড়ে যায়।
  • 4G নেটওয়ার্কের জন্য কমপ্লেক্স হার্ডওয়্যার প্রয়োজন।
  • যদি কিছু এলাকায় এখনও 4G মোবাইল নেটওয়ার্ক না থাকে, তাহলে ব্যবহারকারীরা 3G বা Wi-Fi সংযোগ ব্যবহার করতে বাধ্য হবে।এবং 4G নেটওয়ার্কের পরিবর্তে 3G ব্যবহার করার পরে, ব্যবহারকারীদের এখনও 4G নেটওয়ার্ক প্ল্যান দ্বারা নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ প্রদান করতে হবে।এই সমস্যাটি তখনই সমাধান করা যেতে পারে যখন মোবাইল ক্যারিয়ারগুলি তাদের নেটওয়ার্ক কভারেজ প্রসারিত করে 4G নেটওয়ার্কের জন্য আরও এলাকায় 4G অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।
  • 4G নেটওয়ার্কে ব্যবহারকারীদের জন্য ডেটার দাম বেশি।
  • 4G নেটওয়ার্ক অপারেশনের জন্য ব্যয়বহুল ইনফ্রাস্ট্রাকচার প্রয়োজন।

5G কি?

5G হল ফিফ্থ-জেনারেশন মোবাইল নেটওয়ার্ক টেকনোলজি।5G হল ডিজিটাল সেলুলার নেটওয়ার্ক যেখানে সার্ভিস এরিয়া কিছু ছোট জিওগ্রাফিকাল এরিয়া কাভার্ড করা হয় এই জিওগ্রাফিকাল এরিয়াগুলিকে সেল বলা হয়।5G নেটওয়ার্কগুলি এমনভাবে ডিজাইন করা হয়েছে যাতে তারা প্রত্যেককে এবং সবকিছুকে একসাথে কানেক্ট করতে পারে।সমস্ত অ্যানালগ সিগন্যাল বিট আকারে (0 বা 1) ADAC (অ্যানালগ থেকে ডিজিটাল কনভার্টেডকারী) এর মাধ্যমে একটি ডিজিটাল সিগনালসে কনভার্টেড হয়।সমস্ত 5G ওয়্যারলেস ডিভাইস লোকাল অ্যান্টেনা এবং ট্রান্সসিভারের সাহায্যে একটি ঘরে রেডিও তরঙ্গের মাধ্যমে যোগাযোগ করা হয়।এই লোকাল অ্যান্টেনাগুলি হাই ব্যান্ডউইথ (BW) অপটিক্যাল ফাইবারের মাধ্যমে ইন্টারনেট এবং টেলিফোন নেটওয়ার্কের সাথে সংযুক্ত থাকে।একটি 5G নেটওয়ার্কে, ফ্রিকোয়েন্সি অন্যান্য কোষে পুনরায় ব্যবহার করা হয়। একটি 5G নেটওয়ার্ক প্রতি বর্গ কিলোমিটারে এক মিলিয়ন ব্যবহারকারীকে পরিসেবা দিতে পারে একটি 4G নেটওয়ার্ক প্রতি বর্গ কিলোমিটারে মাত্র 100,000 ব্যবহারকারীকে সহায়তা করতে পারে।4G LTE নেটওয়ার্কের জন্য 5G ডিভাইসগুলিও এনাবল্ড করা হয়েছে যার মানে যদি কোনও ব্যবহারকারী এমন একটি এলাকায় চলে যান যেখানে 5G নেটওয়ার্ক অ্যাক্সেসযোগ্য নয় তাহলে ডিভাইসটি একটি 4G LTE নেটওয়ার্ক ব্যবহার করবে।

5G এর সুবিধা

  • বেটার কাভারেজ এরিয়া কম ট্রাফিক এবং হাই স্পীড ডেটা
  • এটিতে মাল্টিপল ডাটা ট্রান্সফার ক্ষমতা রয়েছে।
  • 1G, 2G, 3G এবং 4G এর তুলনায় 5G টেকনোলজি কম ব্যাটারি খরচ করে।
  • সিকিউরিটি শর্তাবলী অনুযায়ী, 5G বাকিদের থেকে বেশি সুরক্ষিত।
  • 5G ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক (VPN) সমর্থন করে।
  • এটির লেটেন্সি খুব কম।
  • 5G অ্যাপ্লিকেশন অনুসারে ব্যান্ডউইথের প্রয়োজনীয়তা নিয়ন্ত্রণ করে কারণ কিছু অ্যাপ্লিকেশনের জন্য কম BW প্রয়োজন যেখানে কিছু উচ্চ BW প্রয়োজন।
  • 5G অন্যান্য প্রযুক্তির তুলনায় একই সাথে একাধিক ডিভাইস সংযুক্ত করতে পারে।

5G এর অসুবিধা

  • 5G ইনফ্রাস্ট্রাকচার উন্নয়নে হাই ইনভেস্টমেন্ট প্রয়োজন, এবং আপগ্রেডেশন এবং ডিগ্রেডেশন অনেক ব্যয়বহুল
  • যেহেতু 5G একটি হাই স্পিড ডাটা প্রদান করে, তাই এটি স্মার্টফোনে আরও বেশি স্টোরেজ ক্ষমতার প্রয়োজন এবং বিশাল ব্যাটারি পাওয়ারও প্রয়োজন।
  • এখন পর্যন্ত 5G-এর জন্য কোনও নির্দিষ্ট মান জানা নেই কারণ 4G-এর VoLTE রয়েছে৷
  • Wi-Fi সস্তা এবং সহজে সম্ভব, তাই Wi-Fi ইতিমধ্যেই 5G এর তুলনায় একটি ভাল বিকল্প, যার জন্য Wi-Fi এর চেয়ে বেশি খরচ এবং মেইনটেনেন্স প্রয়োজন।
  • যেহেতু 5G নেটওয়ার্ক টেকনোলজিস আন্ডার ওয়ার্কিং মোডে রয়েছে তাই এখনও প্রচুর ত্রুটি রয়েছে এবং বিশ্বব্যাপী কার্যকর হতে সময় লাগবে।
নবীনতর পূর্বতন