লিনাক্স এবং উইন্ডোজের মধ্যে সেরা অপারেটিং সিস্টেম কোনটি?

লিনাক্স এবং উইন্ডোজ এই দুটোই সুপরিচিত অপারেটিং সিস্টেম।যখন আমরা এই দুটির তুলনা করার কথা বলি তখন আমাদের প্রথমে বোঝা উচিত একটি অপারেটিং সিস্টেম কী এবং তারপর তাদের মধ্যে তুলনা শুরু করার আগে লিনাক্স এবং উইন্ডোজের মূল বিষয়গুলি জেনে নেওয়া উচিত।

একটি অপারেটিং সিস্টেম হল লো-লেভেল সিস্টেম সফ্টওয়্যার যা কম্পিউটারের হার্ডওয়্যার এবং সফ্টওয়্যার পরিচালনা করতে সাহায্য করে এবং কম্পিউটারের প্রাথমিক ফাংশনগুলি যেমন টাস্ক শিডিউলিং, রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট, মেমরি ম্যানেজমেন্ট, পেরিফেরাল নিয়ন্ত্রণ করা, নেটওয়ার্কিং ইত্যাদি কাজ খুব সহজ করে তোলে।এটি কম্পিউটার হার্ডওয়্যার এবং সফ্টওয়্যারের মধ্যে একটি ইন্টারফেস হিসাবে কাজ করে। একটি অপারেটিং সিস্টেম একটি কম্পিউটার সিস্টেমের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ। একটি অপারেটিং সিস্টেম ছাড়া, কোনো কম্পিউটার বা মোবাইল ডিভাইস একেবারেই কাজ করতে পারে না।

{tocify} $title={Table of Contents}

লিনাক্স এবং উইন্ডোজের সংক্ষিপ্ত ভূমিকা

বাজারে বেশ কিছু অপারেটিং সিস্টেম পাওয়া যায়। কিন্তু তার মধ্যে ডেস্কটপের বিশ্বে সবচেয়ে প্রভাবশালী ওএস হল মাইক্রোসফ্ট উইন্ডোজ যা প্রায় 85% মার্কেট শেয়ার উপভোগ করে। এর পরে আমরা যথাক্রমে দ্বিতীয় এবং তৃতীয় স্থানে Apple Inc দ্বারা macOS এবং Linux  পেয়েছি।মোবাইল সেক্টরে দেখতে গেলে আমরা এখানে দুটো ওএস পাচ্ছি এই প্রভাবশালী অপারেটিং সিস্টেম হল গুগলের অ্যান্ড্রয়েড এবং অ্যাপলের আইওএস। সার্ভার এবং সুপার কম্পিউটার সেক্টর সম্পর্কে কথা বললে লিনাক্স ডিস্ট্রিবিউশনগুলি এখানে খুব ব্যাবহার হয়। 
 
মাইক্রোসফ্ট উইন্ডোজ হল অনেকগুলি GUI ভিত্তিক অপারেটিং সিস্টেমের একটি গ্রুপ যা মাইক্রোসফ্ট দ্বারা বিকাশিত এবং অফার করা হয়েছে। এটি মূলত ব্যক্তিগত কম্পিউটিং বাজারকে লক্ষ্য করে বানানো হয়েছে।উইন্ডোজ ওএসের দুটি ভার্শনস রয়েছে যেমন 32 বিট এবং 64 বিট এবং উভয় ক্লায়েন্টের পাশাপাশি সার্ভার ভার্শনসও উপলব্ধ আছে। উইন্ডোজ প্রথম প্রকাশিত হয়েছিল 1985 সালে। উইন্ডোজ 10-এ উইন্ডোজের সর্বশেষ ক্লায়েন্ট ভার্শনস যা 2015 সালে প্রকাশিত হয়েছিল। আমরা যদি সার্ভার ভার্শনস সম্পর্কে কথা বলতে গেলে আমাদের কাছে উইন্ডোজ সার্ভার 2019 রয়েছে।

লিনাক্স হল কার্নেলের উপর ভিত্তি করে ইউনিক্স-এর মতো অপারেটিং সিস্টেমের একটি গ্রুপ। এটি বিনামূল্যে ব্যাবহার করা জেতে পারে এবং এটি ওপেন সোর্স সফ্টওয়্যার । এটি সাধারণত লিনাক্স ডিস্ট্রিবিউশনে প্যাকেজ করা হয়। লিনাক্স প্রথম প্রকাশিত হয়েছিল 1991 সালে। এটি সাধারণত সার্ভারের জন্য ব্যবহৃত হয় তবে লিনাক্সের একটি ডেস্কটপ ভার্শনসও পাওয়া যায়।ডেবিয়ান, ফেডোরা এবং উবুন্টু হল জনপ্রিয় লিনাক্স ডিস্ট্রিবিউশন বা অপারেটিং সিস্টেম।

লিনাক্স এবং উইন্ডোজ সিকিউরিটি তুলনা

সিকিউরিটি কথা বলার সময় যদিও লিনাক্স ওপেন সোর্স তবে এটি ব্র্যাক করে ফেলা খুবই কঠিন এবং তাই অন্যান্য অপারেটিং সিস্টেমের তুলনায় এটি একটি অত্যন্ত সুরক্ষিত ওএস। লিনাক্সের জনপ্রিয়তা এবং ব্যাপক ব্যবহারের জন্য এর হাই-টেক সিকিউরিটি প্রধান কারণ।এদিকে লিনাক্স ওপেন সোর্স এবং এর একটি শক্তিশালী ব্যবহারকারী কমিউনিটি রয়েছে।লিনাক্স ওএসে যেহেতু পুরো ইউজার বেসের সোর্স কোডে অ্যাক্সেস করার আনুমুতি রয়েছে তাই নিজে নিজেই সমস্যাগুলির জন্য সমাধান খুব তারাতারি করা জেতে পারে। 
 
এর বিপরীতে উইন্ডোজ ব্যবহারকারীরা নিজেরাই সমস্যাটি ঠিক করতে পারবেন না কারণ তাদের কাছে সোর্স কোড পরিবর্তন করার অনুমতি নেই। যদি তারা সিস্টেমে কোন দুর্বলতা ধরে ফেলে তাহলে তাদের Microsoft এর কাছে রিপোর্ট করতে হবে এবং তারপরে এটি ঠিক হওয়ার জন্য অপেক্ষা করতে হবে।উইন্ডোজে ব্যবহারকারীদের অ্যাকাউন্টগুলিতে সম্পূর্ণ অ্যাডমিন অ্যাক্সেস রয়েছে।যখন একটি ভাইরাস সিস্টেমে আক্রমণ করে এটি দ্রুত পুরো সিস্টেমকে দূষিত করে ফেলতে পারে। সুতরাং উইন্ডোজের ক্ষেত্রে সবকিছুই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে থাকে।উইন্ডোজে অ্যাক্সেস সুবিধাগুলি নিয়ন্ত্রণ করার জন্য আমাদের কাছে একটি UAC (ইউসার একাউন্ট কন্ট্রোল) প্রক্রিয়া রয়েছে যদিও এটি লিনাক্সের মতো শক্তিশালী নয়।

অন্যদিকে লিনাক্স অ্যাকাউন্টগুলির সুবিধা উপভোগ করে যেখানে ব্যবহারকারীদের সীমিত অ্যাক্সেস দেওয়া হয় এবং তাই কোনও ভাইরাস আক্রমণের ক্ষেত্রে সিস্টেমের শুধুমাত্র একটি অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হবে। লিনাক্স ডিফল্টরূপে রুট হিসাবে চলে না বলে ভাইরাসটি পুরো সিস্টেমকে প্রভাবিত বা ক্ষতি করতে সক্ষম হবে না।সিস্টেমের নিরাপত্তা বাড়াতে Linux আইপি টেবিল ব্যবহার করে। Iptables লিনাক্স কার্নেল ফায়ারওয়ালের মাধ্যমে প্রয়োগকৃত কিছু নিয়ম কনফিগার করে নেটওয়ার্ক ট্র্যাফিক নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। এটি নেটওয়ার্কে যেকোনো কমান্ড বা অ্যাক্সেস চালানোর জন্য আরও নিরাপদ এনভায়রনমেন্ট তৈরি করতে সহায়তা করে।

লিনাক্সে কাজ করার এনভিরনমেন্টস গুলিকে ভাগ করা হয়েছে যা এটিকে ভাইরাসের আক্রমণ থেকে সুরক্ষিত রাখে। যাইহোক উইন্ডোজ ওএস খুব বেশি বিভক্ত নয় তার জন্য এটি ভাইরাসের জন্য বেশি ঝুঁকিপূর্ণ।লিনাক্সের আরও বেশি নিরাপদ হওয়ার আরেকটি উল্লেখযোগ্য কারণ হল যে উইন্ডোজের তুলনায় লিনাক্স ব্যবহারকারীর সংখ্যা খুবই কম। লিনাক্সের বাজারের প্রায় 3% রয়েছে যেখানে উইন্ডোজ বাজারের 85% এরও বেশি দখল করে আছে।সুতরাং হ্যাকাররা সবসময় উইন্ডোজকে টার্গেট করতে বেশি আগ্রহী হয় কারণ তারা যে ভাইরাস বা ক্ষতিকারক সফ্টওয়্যার তৈরি করে তা ব্যবহারকারীদের একটি বড় অংশকে প্রভাবিত করবে। এটি পরিবর্তে লিনাক্স ব্যবহারকারীদের নিরাপদ রাখে।সংক্ষেপে আমরা বলতে পারি যে লিনাক্সের কিছু বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা এটিকে উইন্ডোজ এবং অন্যান্য অপারেটিং সিস্টেমের চেয়ে বেশি সুরক্ষিত করে তোলে।
 

লিনাক্স এবং উইন্ডোজ পারফরমেন্স

লিনাক্সে খুব দ্রুততম কাজ করে বলে এই অপারেটিং সিস্টেমটি সুপারকম্পিউটারগুলির মধ্যে নিজের একটি জায়গা করে নিয়েছে।লিনাক্সের দ্রুত এবং স্মুথ হওয়ার জন্য লোকে বেশি পছন্দ করে এবং অপর দিকে দেখতে গেলে উইন্ডোজ 10 সময়ের সাথে সাথে এটি স্লো হতে থাকে। লিনাক্স একটি পুরনো ডেস্কটপে খুব ভালো ভাবে চলতে পারবে কিন্তু উইন্ডোজ পুরানো হার্ডওয়্যারে স্লো গতিতে চলে।থ্রেড শিডিউলিং,মেমরি ম্যানেজমেন্ট,i/o হ্যান্ডলিং,ফাইল সিস্টেম ম্যানেজমেন্ট এবং কোর টুলের মতো ওএসের মূল ক্ষমতা সম্পর্কে কথা বললে,সামগ্রিকভাবে লিনাক্স উইন্ডোজ থেকে উচ্চতর।

কেন লিনাক্স উইন্ডোজের চেয়ে দ্রুত?

লিনাক্স সাধারণত উইন্ডোজের চেয়ে দ্রুত হওয়ার অনেক কারণ রয়েছে। প্রথমত, লিনাক্স খুব হালকা এবং উইন্ডোজ ফ্যাটি। উইন্ডোজে অনেকগুলি প্রোগ্রাম ব্যাকগ্রাউন্ডে চলে এবং তারা RAM খায়।দ্বিতীয়ত লিনাক্সে ফাইল সিস্টেম অনেক বেশি সংগঠিত। ফাইলগুলি খণ্ডে অবস্থিত থাকায় যা একে অপরের খুব কাছাকাছি হয়। এটি রিড-রাইট অপারেশনগুলিকে খুব দ্রুত করে তোলে।

লিনাক্স এবং উইন্ডোজ 10 কোম্পারিসন

কোন সন্দেহ নেই যে উইন্ডোজ 10 এর আগের ভার্সনগুলির তুলনায় উইন্ডোজের এখন একটি সুন্দর এবং নিরাপদ ভার্সন। Windows 10 এর ডিজিটাল অ্যাসিস্ট্যান্ট কর্টানা,মাইক্রোসফ্ট এজ ব্রাউজার,3D ফিচারস সহ মাইক্রোসফ্ট অফিসের মতো কিছু নতুন বৈশিষ্ট্য নিয়ে এসেছে।এটিতে লিনাক্স ব্যাশ কমান্ডগুলি চালানোর ক্ষমতাও রয়েছে। আমাদের Windows 10-এ ভার্চুয়াল ওয়ার্কস্পেসও রয়েছে যা এর ব্যবহারকারীদের বিভিন্ন ডেস্কটপে অ্যাপ্লিকেশন চালানোর অনুমতি দেয়।আপনি যদি লিনাক্স মিন্ট 19 ডেস্কটপ এনভায়রনমেন্টের সাথে Windows 10 ডেস্কটপ এনভায়রনমেন্টের তুলনা করেন, তাহলে আপনি দেখতে পাবেন যে নরমাল অবস্থায় লিনাক্সের তুলনায় উইন্ডোজের ব্যাকগ্রাউন্ডে বেশি RAM ব্যবহার ব্যাবহার হছে। তুলনা করে দেখা গেছে যে লিনাক্স 373 মেগাবাইট RAM ব্যবহার করছে এবং উইন্ডোজ 1.3 গিগাবাইট ব্যবহার করছে যা লিনাক্সের থেকে প্রায় 1000 মেগাবাইট বেশি। এই তুলনাটি একেবারে নতুন ইনস্টলেশনে করা হয়েছিল যখন কোনও অ্যাপ খোলা ছিল না।Windows 10-এর আপডেটগুলি একধরনের লিনিয়ার প্রকৃতির এবং লিনাক্স আপডেটের তুলনায় ধীর। লিনাক্সে, আমরা প্যাকেজগুলিতে আপডেট পাই এবং সেগুলিও দ্রুত আপডেট হয়ে জায়।তবুও গতির ক্ষেত্রে লিনাক্স উইন্ডোজ 10 কে হাড়িয়ে ফেলবে। লুক এবং অনুভূতি সম্পর্কে কথা বললে Windows UI খুব সুন্দর এবং প্রচুর অ্যাপ্লিকেশন সরবরাহ করে এবং লিনাক্স UI বেশ সহজ এবং পরিষ্কার। যাইহোক আপনি লিনাক্সেও উইন্ডোজ অ্যাপ্লিকেশনের বিকল্প খুঁজে পাবেন।লিনাক্স অপারেটিং সিস্টেমের সবার থেকে বড় ডিসএ্যাডভান্টেজ হল লিনাক্সে আপনি উইন্ডোজ সিস্টেমের মতো গেম খেলতে পারবেন না। উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমে আমরা যেমন অনেক ধরনের গেম দেখতে পাই কিন্তু লিনাক্সে আপনি খুব সাধারণ গেম দেখতে পাবেন। 

আপনার মতে কোন ওএস টি ভালো বলে মনে হয়। আমার মতে দুটো ওএস নিজের নিজের জায়গায় ভালো আছে সোজা মতে বলতে গেলে আপনি যদি অতিরিক্ত সিস্টেম সিকিউরিটি অথবা প্রোগ্রামিং ব্যাকগ্রাউন্ড বা টেকনিক্যাল হয়ে থাকেন তাহলে লিনাক্স আপনার জন্য খুব ভালো ওএস হতে পারে। আর আপনি যদি নরমাল অফিসের কাজ বা খুব টেকনিক্যাল ও প্রোগ্রামিং ব্যাকগ্রাউন্ড থেকে না হন তাহলে উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম আপনার জন্য। 

নবীনতর পূর্বতন